Currently set to Index
Currently set to Follow
Books

দ্য দা ভিঞ্চি কোড বাংলা Pdf Download – Da Vinci Code Bangla pdf

Da Vinci Code Bangla pdf Download – দ্য দা ভিঞ্চি কোড বাংলা Pdf  free

বইয়ের নাম: দ্য দা ভিঞ্চি কোড
লেখক: ড্যান ব্রাউন
প্রথম প্রকাশ: ২০০৩ সাল
অনুবাদক: মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন
প্রকাশনা: বাতিঘর
পৃষ্ঠাসংখ্যা : ৪৩১
মুদ্রিত মূল্য: ৪৫০ টাকা
চরিত্র সমূহ: রবার্ট ল্যাংডন, সোফি নেভু, টিচার, জ্যাক সনিয়ে, বেজু ফশে, সাইলাস, ম্যানুয়েল আরিঙ্গারোসা, লেই টিবিং ইত্যাদি।
ধর্মীয় সংগঠন: প্রয়োরি অব সাইওন(প্যাগান),ওপাস দেই(খ্রিষ্টান)
লেখক পরিচিতি:
ড্যান ব্রাউন (জুন ২২, ১৯৬৪) একজন মার্কিন রোমাঞ্চকর উপন্যাস লেখক, যাকে নিয়ে লিখতে গেলে লেখা যায় বহুকিছু। তার সংক্ষিপ্ত পরিচয়ে বলতে গেলে পৃথিবীব্যাপী আলোড়ন তোলা উপন্যাস দ্য দা ভিঞ্চি কোড রচনার জন্য তিনি সবচেয়ে পরিচিত যা ২০০৩সালে প্রকাশিত এবং সর্বাধিক বিক্রী হওয়া উপন্যাস। ব্রাউনের উপন্যাসের মূল উপজীব্য হচ্ছে বর্ণজটীয় সংকেতায়ন বা ক্রিপ্টোগ্রাফি, রহস্যময় সংকেত ও এদের দ্বৈতমানে। তাঁর উপন্যাসে এ ব্যাপারগুলো ঘুরে ফিরে বারবার আসে। বর্তমানে ব্রাউনের লিখা উপন্যাস ৫০টিরও অধিক ভাষায় অনুদিত হয়েছে। ডিজিটাল ফোরট্রেস (১৯৯৮), অ্যাঞ্জেল্স অ্যান্ড ডেমন্স (২০০০),ডিসেপশন পয়েন্ট (২০০১),দ্য দা ভিঞ্চি কোড (২০০৩), লস্ট সিম্বল, ২০০৯ সালে এবং ইনফার্নো ২০১৩সালের ১৪ মে প্রকাশিত।
বইয়ের ব্যাক কভার থেকে:
দু হাজার বছরের পুরোনো একটি সত্যকে চিরতরে নির্মূল করার জন্যে প্যারিসে একই দিনে হত্যা করা হয় চারজন বিখ্যাত ব্যক্তিকে। কি সেই সত্য যে সত্য উন্মোচিত হয়ে গেলে একটি প্রতিষ্ঠিত ধর্মমতের ভিত্তি কেঁপে যাবে? হাজার বছরের ইতিহাস লিখতে হবে একেবারে নতুন করে? আর কেনই বা হাজার বছর ধরে একটি সিক্রেট সোসাইটি সেই সত্যকে সঙ্গোপনে লালন করে আসছে, যে সোসাইটির সদস্য ছিলেন আইজ্যাক নিউটন, ভিক্টর হুগো, বত্তিচেল্লি আর লিওনার্দো ডা ভিঞ্চির মতো ব্যক্তিবর্গ। উগ্র ক্যাথলিক সংগঠন ‘ওপাস দাই’ সেই সত্যকে পুরোপুরি নির্মূল করার আগে অভিনবভাবে সত্যটা হস্তান্তর করে দেয় তাদের সংঘের বাইরের একজনের কাছে আর ঘটনাচক্রে হার্ভার্ডের সিম্বোলজিস্ট রবার্ট ল্যাংডন জড়িয়ে পড়ে মারাত্মক এক মিশনে। শেষ পর্যন্ত, সেই সত্যটা কী—আর পৃথিবীবাসী কি সেই সত্যটা জানতে পেরেছিলো তারই উত্তর নিহিত আছে দ্য দা ভিঞ্চি কোড-এ।
কাহিনী সংক্ষেপ:
লুভ্যর মিউজিয়ামের কিউরেটর জ্যাক সনিয়ে খুন হলেন এক রাতে। তার কিছুক্ষণ পরই হার্ভার্ডের সিম্বোলজিস্ট রবার্ট ল্যাংডনকে ডেকে হল তার হোটেল রুম থেকে। পুলিশ প্রাথমিকভাবে ল্যাংডনকে সন্দেহ করে। কারণ ঐ রাতেই জ্যাক সনিয়ের সাথে ল্যাংডনের দেখা করার কথা ছিল। আবার জ্যাক সনিয়ে মৃত্যুর পূর্বে লিখে রেখে যান- “ওহ ড্রাকোনিয়ান ডেভিল, O lame saint. PS, রবার্ট ল্যাংডনকে খুজে বের কর” কিন্তু ল্যাংডনের সাথে সনিয়ের দেখাই হয় নি। আচমকা এ ধরনের ঝামেলায় জড়িয়ে যাওয়া ল্যাংডনের সাথে দেখা হয় ক্রিপ্টোগ্রাফার সোফি নেভুর। জ্যাক সনিয়ে, সোফি নেভুর দাদু হন। তবে অনেক বছর ধরেই তাদের যোগাযোগ ছিল না। জ্যাক সনিয়ে মারা যাওয়ার আগে তিনি তার নিজের শরীরকে ভিটরুভিয়ান ম্যানের মত আকৃতি করে রাখেন এবং কিছু গুপ্ত সংকেত এঁকে যান। সোফি বুঝতে পারে জ্যাক সনিয়ে চাইছিলেন যে ল্যাংডন তার গুপ্ত সংকেতের অর্থ উদ্ঘাটন করুক। কিন্তু ল্যাংডনই কেন? কেই বা খুন করল জ্যাক সনিয়েকে? কী সেই সত্য যাকে নির্মূল করতে হবে? এসকল প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে বেরিয়ে পড়ুন রবার্ট ল্যাংডন ও সোফি নেভুর সাথে।
পাঠ প্রতিক্রিয়া:
লেখক Roger Ebert এর তার রিভিউতে বলেন ” আমি প্রত্যেকদিন একটু সময়ের জন্য হলেও দ্য ভিঞ্চি কোড পড়ি, নিজেকে এটা মনে করানোর জন্য, জীবন অনেক ছোট, আর সেখানে দ্য ভিঞ্চি কোডের মত বই একজীবনে সবসময় আসে না।”
ব্যাপকভাবে আলোচিত এবং সমালোচিত দ্য দা ভিঞ্চি কোড। তবে অতসব সত্য ঘটনা, কাল্পনিক নাকি বাস্তব, এমন সিক্রেট সোসাইটি সত্যিকারে আছে কিনা, বইটি ঐতিহাসিক ধাপ্পা কিনা- এসব বিবেচনা না করে স্রেফ একটি মৈলিক থ্রিলার হিসেবে মাস্ট রিড দ্য দা ভিঞ্চি কোড। ধাঁধা, রহস্য, কোডব্রেকিং এবং ক্রিপ্টোগ্রাফির দুনিয়া থেকে ঘুরে আসুন ল্যাংডনের সাথে। শ্বাসরুদ্ধকর, নাড়িস্পন্দন বাড়িয়ে দেওয়া- এসব শব্দগুলো অনায়াসেই যায় বইটির সাথে। বইটি পড়ে যে ইতিহাস, যে জ্ঞান পাওয়া যায় সেটা মোটেই ফেলনা নয়।
সবশেষে, বই থেকে একটি কোড দিয়ে যাই। যারা এখনো পড়েন নি, দেখুন তো আগামাথা কিছু ধরতে পারেন কিনা😁
13-3-2-21-1-1-8-5
Oh, Draconian devil!
O’ Lame saint!
Da Vinci Code Direct download link : –  Link :-1 | Link :-2 | Link :-3Link :-4Link :-5

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
error: Content is protected !!