Al quran উচ্চারন ও অর্থসহ pdf

কোরআন শরীফ বাংলা অর্থসহ ebook

al quran bangla pdf – Al quran উচ্চারন ও অর্থসহ pdf ebook links:

মুক্ত জীবনের পথে  কোরআন পড়েছি বহুবার । কিন্ত তেমন কিছুই বুঝি নি, ভেতরে ডুব দিতে পারি নি কখনো । যখন এক নীরব মুহূর্তে কোরআনের গভীরে ডুবে গেলাম, আয়াতগুলো যেন কথা বলতে শুরু করল । শিহরিত, চমকিত হলাম। এক জীবনে যা চাই, তার সবই সাজানো রয়েছে কোরআনের পরতে পরতে । সুস্থ সুন্দর সুখী পরিতৃপ্ত জীবনের জন্যে যা প্রয়োজন, পাতায় পাতায় রয়েছে তারই দিক-নির্দেশনা ।  সবকিছু মিলিয়েই জীবন। তাই সমস্যা শরীরের হোক বা মনের, যৌন জীবনের জট হোক বা অর্থনৈতিক জটিলতা, পণ্যের আসক্তি হোক বা প্রবৃত্তির দাসতু, ব্যক্তির অসততা হোক বা সামাজিক অবিচার, পার্থিব সুখ হোক অথবা পরকালীন পরিত্রাণ, সব একই সূত্রে গাথা । একটাকে আরেকটা থেকে আলাদা করা যায় না। কোরআন এই চিরায়ত সত্যকেই প্রকাশ করেছে সুস্পষ্টভাবে । “পড়ো! তোমার সৃষ্টিকর্তা প্রভুর-নামে। যিনি মানুষকে সৃষ্টি করেছেন নিষিক্ত ডিম্ব থেকে । পড়ো! তোমার প্রতিপালক মহান দয়ালু । তিনি মানুষকে জ্ঞান দিয়েছেন কলমের। আর মানুষকে শিখিয়েছেন, যা সে জানত না।’ সুরা আলাক-এর এই পওক্তিমালা দিয়েই কোরআন নাজিলের সূচনা ।  শুরুতেই কোরআন মানুষকে উদ্ুদ্ধ করেছে পড়তে ও জানতে । কোরআন অজ্ঞতাকে অভিহিত করেছে মহাপাপ রূপে । মানুষকে অনুপ্রাণিত করেছে জ্ঞানের পথে, মুক্তবুদ্ধির পথে । এমনকি বিশ্বাসের স্তরে পৌছার জন্যেও মানুষের সহজাত বিচারবুদ্ধির প্রয়োগকেই বেশি গুরুত্‌ দিয়েছে কোরআন । বৈষয়িক ও আত্মিক জীবনকেও একই সূত্রে গেঁথেছে কোরআন। সুস্পষ্টভাবেই বলেছে, আল্লাহর বিধান অনুসরণ করো । দুনিয়া ও আখেরাতে তুমি সম্মানিত হবে । কোরআনের প্রথম আয়াত নাজিলের ২৩ তম বছরে নাজিল হওয়া সূরা বাকারার ২৮১ আয়াতে আল্লাহ বলেছেন, “তোমরা সেই দিন সম্পর্কে সচেতন হও, যেদিন তোমাদেরকে আল্লাহর কাছে ফিরিয়ে আনা হবে এবং তারপর  প্রত্যেককেই তার কর্মফল পুরোপুরি প্রদান করা হবে  অন্যায় করা হবে না  ।’ প্রথম পঙক্তিমাল     । কারো ওপর কোনো  [য় যেভাবে মানুষের জন্ম প্রক্রিয়ার     নিরহংকার অবস্থার বিবরণ দেয়া     স্বাধীনতা দেয়া হলেও মানুষ জব     1 হয়েছে, শেষদিকের পউক্তিমালায় একইভাবে     তার কর্মের যথাযথ ফল সে পাবে।  বদিহিতার উধের্বে নয়।        আলোয় বদলাতে শুরু করে তারা ।     করে মুক্ত বিশ্বাস ও  সঠিক     পিতৃপুরুষের হাজার বছরের সংস্কার ও ধর্মান্ধতার     বনদৃষ্টি। এরপর নিজের     কোরআনের প্রথম আয়াত নাজিল হয় ৬১০ সালে আর শেষ আয়াত ৬৩২ সালে। ধাপে ধাপে খণ্ডে খণ্ডে দীর্ঘ ২৩ বছরে পরিপূর্ণতা আয়াত নাজিল হওয়ার পরই স্পষ্ট হয়ে ওঠে এর আকর্ষণী ক্ষমতা । অবিদ্যা বা জাহেলিয়াতের অন্ধকারে নিমজ্জিত মানুষগুলো আলো  পায় কোরআন। প্রথম     র সন্ধান পায়। সেই     বৃত্ত ভেঙে তারা লাভ মুক্তির জন্যে, মানুষের  ত্যাগ স্বীকারেই._পিছপা হয় নি তারা। অবিদ্যা হিংসা     সন্ত্রাস রক্তপাত শোষণ জুলুম অ        [র নারীনির্ধাতনে নিমজ্জিত  মানুষেরাই পরিণত  হয় সত্য ও ন্যায়ের মূর্ত প্রতীকে । দলীয়, গোত্রীয় ও উপজাতীয় হানাহানিতে  লিপ্ত বিক্ষিপ্ত সম্প্রদায়গুলো এক্যবদ্ধ হয়ে পরিণত হয় এক দুর্দমনীয় আদর্শিক  জাতিসত্তীয়। তদানীন্তন পরাশক্তি  প্রথম আয়াত নাজিল হওয়ার ৫০ বছরের মধ্যে কোরআনের অনুসারীরা        রোমান ও পারস্য সাম্রাজ্যকে নিশ্চিহ করে পরিণত হয়     তখনক ইতিহাস স        র একমাত্র পরাশ ক্ষমী! কোরআন ছাড়া আর কোনো গ্রন্থুই প্রচারিত হওয়ার সাথে     ক্িতে।     সাথে মানুষের হৃদয়ে এত আলোড়ন সৃষ্টি করতে পারে নি,  এত দ্রুত মানুষকে     এমনভাবে বদলে দিতে পারে নি। কোরআন সরাসরি     হয়েছিল     যাদের সামনে নাজিল     তারাই শুধু আলোকিত হন নি; ধর্মান্ধতা ও পাশবিকতার পরিবর্তে  ধর্ম, মানবিকতা ও মুক্তবুদ্ধির এই স্রোত প্রবাহিত হয়েছে প্রজন্মের পর প্রজনন, শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে। ধর্ম, মানবিকতা ও মুক্তবুদ্ধির এই প্লোত ইতিহাসের মধ্যযুগে সৃষ্টি করেছিল এক আলোকোজ্জ্বল সভ্যতা .

নূরানী বাংলা কোরআন শরীফ বাংলা উচ্চারণ অনুবাদ ও প্রয়োজনীয় টীকা সহ pdf

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *